• Tuesday, 31 January 2023
রসিক নির্বাচনে  প্রতীক পেয়ে প্রচারণায় প্রার্থীরা

রসিক নির্বাচনে প্রতীক পেয়ে প্রচারণায় প্রার্থীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক মমিনুল ইসলাম রিপন রংপুর: রংপুর সিটি কর্পোরেশন (রসিক) নির্বাচনে মেয়রসহ কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী ২৫৫ প্রার্থীর মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দিয়েছেন নির্বাচন কমিশন। প্রতীক পেয়েই জাতীয় পার্টি ও আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন দলের মেয়র প্রার্থীরা শুরু করেছেন প্রচারণা। 

শুক্রবার (০৯ ডিসেম্বর) সকালে রংপুর শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে নির্বাচনে অংশ নেওয়া প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ দেন রিটার্নিং কর্মকর্তা আব্দুল বাতেন। এ দিন মেয়র পদে ৯ জন, ১১ সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর পদে ৬৭ জন, ৩৩ ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১৭৯ জনসহ মোট ২৫৫ প্রার্থীর মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়। এরপরই শুরু হয়েছে আনুষ্ঠানিক প্রচারণা। ভোট গ্রহণের ৩২ ঘণ্টা আগ পর্যন্ত চলবে এ
প্রচারণা।

নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী অ্যাডভোকেট হোসনে আরা লুৎফা ডালিয়া (নৌকা), জাতীয় পার্টির মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা (লাঙ্গল), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমিরুজ্জামান পিয়াল (হাতপাখা), জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদের (ইনু) প্রার্থী শফিয়ার
রহমান (মশাল), খেলাফত মজলিশের তৌহিদুর রহমান মণ্ডল রাজু (দেয়াল ঘড়ি), জাকের পার্টির খোরশেদ আলম (গোলাপ ফুল), বাংলাদেশ কংগ্রেসের আবু রায়হান (ডাব), স্বতন্ত্র প্রার্থী মেহেদী হাসান বনি (হরিণ) ও মেট্রোপলিটন কোতোয়ালী থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ইঞ্জিনিয়ার লতিফুর রহমান মিলনকে (হাতি) প্রতীক দেওয়া হয়।


প্রার্থীদের আচরণবিধি মেনে প্রচারণা চালাতে অনুরোধ জানিয়েছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা ও নির্বাচন কমিশনের যুগ্ম সচিব আবদুল বাতেন। তিনি বলেন, আমরা চাই অবাধ, সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন উপহার দিতে। এজন্য প্রার্থী ও ভোটারসহ সবার সহযোগিতা থাকা চাই। নির্বাচনের প্রচারণায় যেন বিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ না ওঠে, সে ব্যাপারে প্রার্থী ও তাদের কর্মী-সমর্থকদের সজাগ থাকতে হবে। আচরণবিধি ভেঙে প্রচার চালালে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও হুঁশিয়ারি দেন তিনি।


প্রসঙ্গত, এবার তৃতীয়বারের মতো রংপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, ২৭ ডিসেম্বর ২২৯টি কেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে সকাল সাড়ে ৮টা থেকে বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত একটানা ভোটগ্রহণ চলবে।
২০১২ সালের ২৮ জুন পৌরসভার ১৫টি ওয়ার্ডের সঙ্গে বর্ধিত এলাকার (সাবেক সদর উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়ন থেকে) আরও ১৮টি ওয়ার্ড যুক্ত করে মোট ৩৩টি ওয়ার্ড নিয়ে রংপুর সিটি কর্পোরেশন গঠন করা হয়। এরপর ওই বছরের ২০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী সরফুদ্দিন আহমেদ ঝণ্টু প্রথম নগরপিতা হিসেবে নির্বাচিত হন। ২০১৭ সালের ২১ ডিসেম্বর দ্বিতীয় নির্বাচনের সময় ভোটার ছিল ৩ লাখ ৯৩ হাজার ৯৯৪ জন। এতে জাতীয় পার্টির প্রার্থী হিসেবে মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা মেয়র নির্বাচিত হন। বর্তমানে এই সিটির জনসংখ্যা প্রায় ১০ লাখ। আর ভোটার রয়েছেন ৪ লাখ ২৬ হাজার ৪৬৯ জন।

comment / reply_from