• Saturday, 10 December 2022

ইরানকে মুক্ত করার ঘোষণা বাইডেনের

ইরানকে মুক্ত করার ঘোষণা বাইডেনের

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন গতবৃহস্পতিবার ইরানকে ‘মুক্ত’ করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে বলেছেন, ‘ইসলামী প্রজাতন্ত্রের বিরোধিতাকারী বিক্ষোভকারীরা শীঘ্রই নিজেদের মুক্ত করতে সফল হবে। ইরানের রাষ্ট্রপতি ইব্রাহিম রাইসি আজ শুক্রবার বাইডেনের এ বক্তব্যের কঠোর জবাব দিয়েছেন।’

ক্যালিফোর্নিয়ায় প্রচারাভিযানের বক্তব্যে বাইডেন বলেছিলেন, ‘চিন্তা করবেন না, আমরা ইরানকে মুক্ত করতে যাচ্ছি। তারা খুব শীঘ্রই নিজেদের মুক্ত করবে।

এ সময় অনেক বিক্ষোভকারী ইরানের বিক্ষোভকারীদের সমর্থনে ব্যানার ধরে বাইরে জড়ো হয়েছিলেন। তবে, সান দিয়েগোর কাছে মিরাকোস্টা কলেজে বক্তৃতায় বাইডেন এ ব্যাপারে বিস্তারিত বা তিনি কী অতিরিক্ত পদক্ষেপ নেবেন সে বিষয়ে কিছু বলেননি।

ইরানের রাষ্ট্রপতি ইব্রাহিম রাইসি আজ শুক্রবার মার্কিন দূতাবাস দখলের বার্ষিকীতে সরকারপন্থী সমাবেশের সময় বাইডেনের ওই বক্তব্যের তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। ইরান গত ১৯৭৯ সালের নভেম্বরে তেহরানে মার্কিন দূতাবাস দখল করেছিল এবং যার ফলস্বরূপ কয়েক ডজন মার্কিনি ৪৪৪ দিনের জন্য জিম্মি ছিল। অনুষ্ঠানে কঠোর মার্কিনবিরোধী মন্তব্যে রাইসি বলেছেন যে, তিনি বাইডেনের বক্তব্যটি দেখেছেন, ‘তিনি (বাইডেন) হয়তো অলস অবস্থায় কথাগুলো বলেছেন। ’

বাইডেনের মন্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় রাইসি বলেন, ‘তিনি সরকারি মঞ্চে দাঁড়িয়ে ইরানকে মুক্ত করার কথা বলেছেন। কিন্তু মি. প্রেসিডেন্ট, ইরান ৪৩ বছর আগে মুক্ত হয়েছে এবং আপনার ক্রীতদাস না হওয়ার প্রতিজ্ঞা করেছিল। ’

ইরানের তেল রপ্তানি বন্ধ করার মার্কিন প্রচেষ্টাকে উপহাস করে রাইসি বলেন, ‘ওয়াশিংটনের পরিকল্পনা পরাজিত হয়েছে। আজ এই অঞ্চলে আমাদের প্রভাব রয়েছে। ইরানের চুক্তি ছাড়া কোনো সমীকরণ সফল হবে না এবং যুক্তরাষ্ট্রও এটি খুব ভালো করেই জানে।’

হোয়াইট হাউসের জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদ তাৎক্ষণিকভাবে এ ব্যাপারে মন্তব্য করার অনুরোধে কোনো জবাব দেয়নি।

গত ২০২০ সালে নির্বাচনের আগে বাইডেন ঘোষণা করেছিলেন, তিনি ইরানের সাথে ২০১৫ সালের পারমাণবিক চুক্তি পুনরুদ্ধার করবেন। যা জেসিপিওএ নামে পরিচিত। এটি বাইডেনের পূর্বসূরিরা পরিত্যাগ করেছিলেন। তবে, সেপ্টেম্বরে ইরানে বিক্ষোভ শুরু হওয়ার আগে ১৮ মাস এই চুক্তি নিয়ে আলোচনা হলেও কোনো ফল পাওয়া যায়নি। অন্যদিকে, বাইডেন প্রশাসন ইরানকে অভিযুক্ত করে বলেছে, ইরান ইউক্রেন যুদ্ধে ব্যবহারের জন্য রাশিয়াকে ড্রোন সরবরাহ করছে।

পুলিশি হেফাজতে ২২ বছর বয়সী তরুণী মাহসা আমিনির মৃত্যুর কারণে সাত সপ্তাহ ধরে ইরান বিক্ষোভে জ্বলছে। গত ১৬ সেপ্টেম্বর আমিনির মৃত্যুর কারণে শুরু হওয়া বিক্ষোভ সরকারবিরোধী আন্দোলনে রূপ নিয়েছে। ইরানজুড়ে বিক্ষোভকারীরা সর্বোচ্চ নেতার বিরুদ্ধে স্লোগান দিচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্র গত বুধবার বলেছে, ‘নারীর অধিকার অস্বীকার ও বিক্ষোভে নৃশংস দমন-পীড়নের জন্য ৪৫ সদস্যের ইউএন কমিশন অন দ্য স্ট্যাটাস অব উইমেন (সিএসডাব্লিউ) থেকে ইরানকে সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করবে।’ -সূত্র : ইরান ইন্টারন্যাশনাল

comment / reply_from

related_post