Logo
বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারি, ২০২২ | ৬ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

রাউজানে বৃষ্টিতে পচে যাচ্ছে ধান

প্রকাশের সময়: ৯:০০ অপরাহ্ণ - মঙ্গলবার | ডিসেম্বর ৭, ২০২১

তৃতীয় মাত্রা

আমির হামজা, রাউজান প্রতিনিধি : সারাবছরের কষ্টে অর্জিত সোনালী ফসল ঘরে তুলার আগেই হঠাৎ বৃষ্টিতে কাল হয়েছে হাজারো কৃষকের। এবার রাউজানে আমান ধানের বাম্পার ফলন দেখে প্রতিটি কৃষকের মুখে মুখে ছিল হাঁসি। কিন্তু এই হাঁসি একটি মাত্র বৃষ্টিতে সারাবছরের স্বপ্ন মাঠি করে দিয়েছে। উৎপাদিত আমান ধান গুলো
কয়েক দিনের বৃষ্টিতে উপজেলার বেশ কিছু জমিতে ধান, আগাম জাতের আলু, বিভিন্ন শীতকালীন সবজিসহ ফসলের ব্যাপক ক্ষতি সাধন হয়েছে। জমিতে জমে থাকা পানিতে ফসল পচে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন কৃষকেরা। এছাড়া জমিতে খেটেরাখা অসংখ্য ধান এখন পানিতে পচে যেতে শুরু করেছে। সরজমিন দেখা যাই, উপজেলার প্রায় ১৪টি ইউনিয়নে এখনো আমান ধানের জমি থেকে ৩ ভাগের মাত্র ২ অংশের কাছাকাছি কাটা হয়েছে। এখনো জমিতে রয়েছে প্রায় ২ অংশ পরিমাণ। বিভিন্নস্থনে ধান বৃষ্টি ও মৃদু বাতাসে ধান গাছ নুয়ে পড়েছে। জমিতে জমে রয়েছে বৃষ্টির পানিও। এতে লোকসানের কথা জানিয়েছেন বিভিন্ন চাষিরা। এদিকে রোপন করা আলু, তরমুজ, বেগুন, শসাসহ অসংখ্য সবজির বীজতলা নষ্ট হয়েছে। এ বিষয়ে কৃষক’রা জানান, রবিবার রাতে থেকে ও মঙ্গলবারসহ দিনভর টানা বৃষ্টিতে উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নসহ পৌর এলাকার বেশ কিছু জমিতে বিভিন্ন প্রকার সবজি, পাকা-আধাপাকা ধান গাছ জমির সঙ্গে মিশে গেছে, জমিতে জমেছে পানি। এতে জমির সঙ্গে মিশে যাওয়া ধান গুলো পচন ধরছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা সঞ্জীব কুমার সুশীল জানান, এ বছর উপজেলায় ১১ হাজার ৮৭০ হেক্টর জমিতে আমন চাষ করা হয়েছিল। ইতিমধ্যেই প্রায় বৃষ্টির আগে ৮ হাজার হেক্টর জমিতে ধান কাটা হয়েছে। ৩ হাজার হেক্টর মতো ধান জমিতে পাকাআধা পাক রয়েছে। সেখানে কিছু পরিমাণ ধান ক্ষতি হলেও হতে পারেন বলে জানান এই কৃষি কর্মকর্তা। তিনি আরও জানান, রাউজান উপজেলার মধ্যে উত্তর রাউজানে প্রায় জমিতে ধান কাটা সম্পূর্ণ হয়েছে। শুধুমাত্র দক্ষিণ রাউজানের পাহাড়তলী ইউনিয়ন, বাগোয়ান ইউনিয়ন, পূর্ব শুজরা, পশ্চিম গুজরা, নোয়াপাড়া ইউনিয়ন, কদলপুর। এই কয়েকটি ইউনিয়নে কিছু পরিমাণ ধান জমিতে রয়েছে। এতে করে কৃষকের তেমনটা ফসলের ক্ষতি হবেনা বলে তিনি জানান। এ বিষয়ে কৃষকদের সার্বক্ষণিক পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। এছাড়াও রাউজানে ৪ হাজার ৯ শত ৫৫ জন কৃষককে বিনামূল্য বোরো হাইব্রিড, উফশি, রবি ফসলের বীজ, সার ও কৃষি যন্ত্রপাতি দেয়া হচ্ছে। সেই ক্ষত্রে অল্প পরিমাণ ধানের ক্ষতি হলেও কৃষকরা ক্ষতি পূরণ পাবেনা। যেহেতু সরকারি প্রণোদনা চলমান রয়েছে। এরপর আমরা খবর নিচ্ছি কোন কৃষকের বড় ধরনের কোন ক্ষতি হয়েছে কিনা।

Read previous post:
ঘাটাইলের দেউলাবাড়ী ইউপি নির্বাচনে নৌকা প্রার্থীর জনসমাবেশ

তৃতীয় মাত্রা মোঃ আল-আমীন রহমান ঘাটাইল (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধিঃ টাঙ্গাইল ঘাটাইলে দেউলাবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রার্থী মোঃ সুজাত...

Close

উপরে